চাকরি না হলেও এখন থেকে পেনশন পাবে সবাই

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রাষ্ট্রের সব নাগরিককে পেনশন দেয়া হয়। এই পদ্ধতিকে ‘ইউনিভার্সাল পেনশন’ পদ্ধতি বলা হয়েছে। নাগরিকের দেয়া ভ্যাট, ট্যাক্স বা অন্যান্য অর্থ থেকে এ সুবিধা নিশ্চিত করে সরকার।এবার বাংলাদেশেও এই পদ্ধতি চালু করতে যাচ্ছে সরকার।

এ লক্ষ্যে শিগগিরই গঠন করা হবে ‘ইউনিভার্সাল পেনশন অথরিটি’।বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ পরিকল্পনার কথা জানান।এর আগেও ইউনিভার্সাল পেনশনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তবে তা এখনও বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, ইউনিভার্সাল পেনশন পদ্ধতি চালু করতে আরও অন্তত ৩ থেকে ৪ বছর সময় লাগবে। এটি যেন দ্রুত করা যায় এজন্য ‘ইউনিভার্সাল পেনশন অথরিটি’ শিগগিরই গঠন করা হবে।কালের কন্ঠ অনলাইন

আরো পড়ুনঃ তামাশাতে পরিণত হয়েছে বিশ্বকাপ?

এমন একটি সময় ইংল্যান্ডে ওয়ানডে বিশ্বকাপের আয়োজন করা হয়েছে, যে সময়টিতে সাধারণত বৃষ্টি হয়ে থাকে। বিশ্বকাপ শুরুর আগে আবহাওয়ার পূর্বাভাসেও এমনটাই বলা হয়েছিল। বাস্তবেও ঘটছে একই ঘটনা। প্রায় প্রতিদিনই বৃষ্টি এসে বাগড়া দিচ্ছে। পরিত্যক্ত হচ্ছে ম্যাচ।

দর্শকরা হতাশ হয়ে পড়েছে যা এখন জন্ম দিচ্ছে ক্ষোভের! আসলেই ইংল্যান্ডে হচ্ছেটা কী? এটা কি বিশ্বকাপ নাকি তামাশা? গত ১৪ দিনে ১৮টি ম্যাচের মধ্যে ৩টি ম্যাচই বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়েছে। ওভার কর্তনের ঘটনাও ঘটেছে বেশ কয়েকটি ম্যাচে।

ইতিমধ্যেই বৃষ্টিতে তিনটি ম্যাচ ভেস্তে যাওয়ার জন্য শ্রীলঙ্কা ২ পয়েন্ট, বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ পয়েন্ট করে খুইয়েছে। রিজার্ভ ডে না থাকা নিয়ে বিতর্কও দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশের কোচ স্টিভ রোডস তো স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘চাঁদে মানুষ পাঠানো সম্ভব হয়েছে আর রিজার্ভ ডে রাখা সম্ভব হয়নি!’

আজ বৃহস্পতিবার ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের ম্যাচটিতেও হানা দিয়েছে বৃষ্টি। ম্যাচ শুরু হওয়া তো দূরের কথা; ট্রেন্টব্রিজে এখনও টসই অনুষ্ঠিত হয়নি। সর্বশেষ যা অবস্থা, তাতে পরিত্যক্ত ম্যাচের তালিকায় নাম লেখাতে যাচ্ছে আজকের ম্যাচটি।

এমন অবস্থায় বিশ্বকাপের আমেজটাই নষ্ট হয়ে গেছে। দর্শকরা প্রচণ্ড বিরক্ত হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন বিশ্বকাপ থেকে। এভাবে না খেলে কেবল পয়েন্ট ভাগাভাগি করে বিশ্বকাপ শেষে হয়ে যাওয়ার কোনো মানে হয়?

Please follow and like us: